আবরার হত্যা, ছাত্ররাজনীতি এবং বাকস্বাধীনতা

১) আবরারকে তারা পিটিয়ে মেরে ফেললো। একধাপের মারায় মরেনি সে। তিন ধাপে মারা হয়েছে তাকে, হুম তিন তিন বার। মেরেছে, মলম লাগিয়েছে,আবার মেরেছে, রাতের খাবার খাইয়েছে, এরপর আবার মেরেছে এবং একেবারে মেরেই ফেলেছে। রক্তক্ষরণে মারা যায়নি সে, মারা গেছে ব্যাথা সহ্য করতে না পেরে। কতোটা কষ্ট পেয়ে মারা গেছে সে সেটা বলাই বাহুল্য। আর, কতোটা অমানবিক, পাষণ্ড মনের অধিকারী হওয়া লাগে এমন একটা কাজ করতে, সেটা আমার ভাবনার বাইরে। ২) এই যে লীগের ব্যানারে কাজটা তারা করলো, ভয়ডরহীন মানসিকতা নিয়ে, এই মানসকিতা, ক্ষমতার দম্ভটা তারা পেলো কোথায়? দলীয় রাজনীতির প্রভাব, ক্ষমতার দম্ভ আর বছরের পর বছর দলীয় সিনিয়রদের আস্কারাইতো এর …

ডিপ ওয়েব, ডার্ক ওয়েব, গুজব, অতিরঞ্জন এবং অন্যান্য

ডিপ ওয়েব, ডার্ক ওয়েব নিয়ে আমাদের অনেকের মনে একটা প্রচন্ড রকমের রহস্যমন্ডিত আগ্রহ আছে যার মূল হলো সেগুলা সম্পর্কে প্রচলিত কিছু ভুল এবং অতিরঞ্জিত তথ্য । যেহেতু গুজব, ষড়যন্ত্রতত্ত্ব বা অতিরঞ্জিত তথ্যে মানুষের আগ্রহ সবসময়ই বেশি থাকে, তাই এই আগ্রহকে ব্যবসায়িক উদ্দেশ্যে ব্যবহারের জন্য বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মূলধারার সংবাদপত্রগুলাও এই টপিকের উপর সত্য মিথ্যার মিশেলে খবর ছাপিয়েছে অগুনতি (১, ২, ৩) । ইন্টারনেট বা ইউটিউবে সার্চ দিলে মিথ্যা এবং অতিরঞ্জিত খবরের ভীড়ে আসল তথ্য পাওয়াটাই কঠিন হয়ে যায় । তাই, নিজের জানাশোনার মধ্যে যথাসম্ভব সঠিক তথ্য দেয়ার চেষ্টায় ইন্টারনেটের এই ব্যাপারটা নিয়ে কিছুটা ধারণা দেয়ার চেষ্টা করবো । . ১) …

“ব্লু হোয়েল” সংশ্লিষ্ট গুজব এবং কিছু তথ্যাবলী

প্রথমেই সংবাদ শিরোনাম(স্পয়লার): যদিও “ব্লু হোয়েল” নামে কিছু একটা ছিল এবং সেটার সাথে কিছু ছেলে-মেয়ের আত্মহত্যার ঘটনা সম্পর্কিত, কিন্তু, এটাও সত্যি যে, “ব্লু হোয়েল” কোন গেইমই না, এটাতে ঢুকতে ডার্ক ওয়েব লাগে না, এটা শুরু করলে ফিরে আসা যাবে না এমন কিছু নেই এবং সর্বোপরি এই গেইমের ক্রিয়েটর আপনাকে ফলো করে না, করতে পারে না, তথ্য হাতিয়ে নেয় না, নেয়ার সম্ভাবনা নেই । মানুষ সব সময়ই কন্সপাইরেসি থিওরি পছন্দ করে, গুজব বিশ্বাস করতে ভালোবাসে । এটাও সেই লিস্টে নতুন এবং প্রচন্ড ক্ষতিকর একটা সংযোজন ।   এবারে বিস্তারিতঃ ১) ব্লু হোয়েল গেম নামে কিছু কি আসলেই আছে? উত্তরঃ হুম আছে, তবে …

প্রধান বিচারপতি ছুটিতে গেলেন? নাকি ছুটিতে পাঠানো হলো?

আর মাত্র তিনটা মাস । এরপরেই প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমান সিনহা অবসরে যেতেন । এরমধ্যেই হঠাৎ তিনি এতোটাই অসুস্থ বোধ করলেন যে, এক মাস ছুটিতে চলে গেলেন । মনে নানাবিধ সন্দেহ থাকা সত্ত্বেও এতোটুকু পর্যন্ত মেনে নিয়েছিলাম পর্যাপ্ত এবং বিশ্বাসযোগ্য তথ্য প্রমাণের অভাবে । কিন্তু, আইনমন্ত্রী নিজে যখন বিচারপতির ছুটি চেয়ে করা দরখাস্তের কপি সাংবাদিকদের দেখালেন(লিঙ্কঃ ১) তখন সেই ছুটির দরখাস্ত দেখে সন্দেহটাই সত্যি প্রমাণিত হলো ।     আইনমন্ত্রী কর্তৃক সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত ভুল বানানে ভরা ছুটির দরখাস্তটিতে সবচেয়ে অবাক করা ব্যাপার হলো প্রধান বিচারপতির স্বাক্ষর । আমাদের দেশে যে কোন মানুষের বাংলা এবং ইংরেজি দুটি স্বাক্ষর থাকতেই পারে । কিন্তু, …

ডিম আগে না মুরগি আগে?

একটা শতাব্দী প্রাচীন প্রশ্ন । কেউ বলে ডিম ছাড়া মুরগি কিভাবে আসবে । কেউ বলে মুরগি ছাড়া ডিম কিভাবে আসবে ! দুটোই যৌক্তিক প্রশ্ন । কিন্তু, উত্তর কি দুটো? না । আমরা এই উত্তরটাই আজ খোঁজার চেষ্টা করবো । . ডিমের মাধ্যমে বাচ্চা উৎপাদন করে এমন প্রাণী মুরগির আগেও আরও অনেক আছে । সুতারাং, ডিম আগে এটা বলাই যায় । অর্থাৎ, সঠিক প্রশ্নটা হচ্ছে, মুরগি আগে নাকি মুরগির ডিম আগে । এই ক্ষেত্রে আমাদের বিবর্তনের কার্যপ্রক্রিয়া বোঝা জরুরী । . বিবর্তনের দিক থেকে বিবেচনা করলে ডিম আগে । কারণ, বিবর্তনের মাধ্যমে একটা প্রাণী থেকে আরেকটা প্রাণীর বিবর্তন হয় তাদের জীনে …

কিভাবে যাচাই করবেন কোন তথ্য বা ছবি?

ইন্টারনেটের কল্যানে যেকোনো কিছু সম্পর্কে তথ্য পাওয়া যেমন অনেক সহজ হয়ে গেছে, তেমনি আপনার অজ্ঞতা বা অসতর্কতার সুযোগ নিয়ে যেকোনো ব্যাপারে বিভ্রান্তিকর তথ্য ছড়ানোও অনেক সহজ হয়ে গেছে । কিন্তু, ভুল তথ্য বা ভুয়া ছবির এই ব্যাপারটা এড়ানো যায় খুব সহজেই, শুধুমাত্র গুগল ব্যবহার করেই । কিভাবে? বলার চেষ্টা করি । ১) ভুল তথ্য বা সংবাদঃ কোন তথ্য ভুল বা সন্দেহজনক মনে হচ্ছে? হেডলাইনটা বা কিছু কিওয়ার্ড লিখে গুগলে সার্চ দিন । আশা করা যায়, গুগল সার্চের প্রথম পৃষ্ঠাতেই পেয়ে যাবেন আপনার উত্তর । যে সাইটগুলার পাঠকপ্রিয় এবং নির্ভরযোগ্য, সেগুলোকে ফলো করার চেষ্টা করবেন । যেমনঃ চাঁদে অবতরণের ব্যাপারটা সম্পর্কে …

মুভি রিভিউঃ টুয়েল্ভ মাংকিস

স্পয়লার এলার্টঃ কোন স্পয়লার নাই । আমার মাথায় প্যাঁচ খাবে না ক্যান বলেন? ছবিতে যে সাইকিয়াট্রিস্ট (রাইলি) তারই মাথায় প্যাঁচ খাইয়া গেছে, আমিতো কোন ছার ! ছবিটা শুরু একটা পোস্ট ডিজাস্টার ইভেন্ট থেকে । খাদ্য এবং সব রকম রিসোর্সের ঘাড়তিগত সমস্যা থেকে বাঁচার জন্য ১৯৯৬ সালে একদল মানুষ (কারা তারা, সেই তথ্যটা দিলাম না) প্রাণঘাতী ভাইরাস দিয়ে দুনিয়ার ৫ বিলিয়ন মানুষকে মেরে ফেলে । মাত্র ১ ভাগ মানুষ বেঁচে যায় যারা আন্ডারগ্রাউন্ডে আশ্রয় নেয় । সেই অল্প মানুষদের একজন হচ্ছে জেমস কোল । তাকে বিজ্ঞানীরা অতীতে পাঠায় সেই ডিজাস্টারের ভাইরাস সম্পর্কিত তথ্য সংগ্রহের জন্য যেন তারা সেই তথ্য বিশ্লেষণ করে …

শেখ কামালকে নিয়ে প্রচলিত দুটি অপপ্রচারের খণ্ডনচেষ্টা

বঙ্গবন্ধুর পরিবার নিয়ে যে দুইটা অপপ্রচার সবচেয়ে বেশি প্রচলিত সে দুইটা হলো মেজর ডালিমের বউকে অপহরণ এবং শেখ কামালের ব্যাংক ডাকাতি সম্পর্কিত ঘটনা । দুইটা ঘটনাই রেফারেন্স সহকারে খন্ডন করার চেষ্টা করি ।   ১) মেজর ডালিমের বউকে অপহরণ সংক্রান্ত ঘটনাঃ   এই সম্পর্কিত ঘটনার সবচেয়ে ভালো প্রমাণ হতে পারে মেজর ডালিমের নিজের ভাষ্য। সে নিজে বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করছে, সে হিসাবে বঙ্গবন্ধুর পক্ষে বা বিপক্ষে বলা তার কথার ক্রেডিবিলিটি এমনিতেও খুব কম, তার উপর নিজের এবং নিজের বৌ এর সাথে ঘটা ঘটনাতে তো বঙ্গবন্ধু আর তার পরিবারের কেউ জড়িত থাকলে সেটা উল্টা আরও বাড়ায়ে বলার কথা, তাই না? বস্তুত, এই …

বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ড এবং তার বিচার সম্পর্কে কিছু টুকরো তথ্য

পুরা পৃথিবীর ইতিহাসে সবচেয়ে বেইমান, অকৃতজ্ঞ জাতি সম্ভবত আমরা । যে মানুষটা তার সারাটা জীবন পার করে দিয়েছিলেন আমাদের ভালোর চিন্তায় (তার কিছু কাজ ভাল নাকি খারাপ সেটা নিয়ে তর্ক হতে পারে, আলোচনা-সমালোচনা হতে পারে, সেটা ভিন্ন ব্যাপার, কিন্তু তার উদ্দেশ্য যে ভালো ছিল সেটা নিয়ে সম্ভবত তর্কের অবকাশ নাই), জেল খেটেছিলেন, এমনকি একটা অনিচ্ছুক, অনুপযুক্ত জাতির স্বাধীনতা লাভে মূল ভূমিকা পালন করেছিলেন, সেই মানুষটাকেই আমাদেরই কিছু জাত ভাই তার কাজের পুরষ্কার হিসেবে হত্যা করেছে স্বপরিবারে, ছাড়েনি তার আত্মীয় স্বজনকেও । সেটাকেও একটা কালো অধ্যায় বলে মেনে নেয়া যেতো যদি পরবর্তী প্রজন্ম তার প্রাপ্য মর্যাদাটুকু বুঝতো । কিন্তু না, আমাদেরই …

বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ড এবং তার বিচার সম্পর্কে আপনি কতোটুকু জানেন?

আগামীকাল বঙ্গবন্ধুর ৪২তম মৃত্যুবার্ষিকী । জাতীয় শোক দিবসের প্রাক্কালে বঙ্গবন্ধুর হত্যা এবং বিচার সম্পর্কিত কিছু প্রয়োজনীয় তথ্য সবার সাথে শেয়ার করার ইচ্ছায় একটা কুইজ বানালাম । কুইজের শেষে উত্তরগুলো যথাসম্ভব বিস্তারিত দেয়ার চেষ্টা করেছি । আপনাদের যদি ভালো লাগে এবং নতুন কিছু আপনাদের জানার ভাণ্ডারে যোগ হয়, তাহলেই আমার এই প্রচেষ্টা সফল বলে ধরে নিবো ।