মেয়েটা কাঁদছে । গাল বেয়ে অঝোর ধারায় নেমে আসছে অশ্রুজল । সেই অশ্রু তার ঠোঁট ছুঁচ্ছে না, ভিজিয়ে দিছে ছেলেটির পা । ছেলেটিও নির্বাক, বিলি কাটছে মেয়েটির মাথায় । তার চোখ বেয়েও অশ্রু গড়াচ্ছে অবিরত । দুজনের অশ্রুতেই ধুয়ে মুছে যাচ্ছে তাদের এতদিনের স্বপ্ন, ভালোবাসা, ভালো লাগা । তারা একসাথেই বসে আছে গাড়িতে, কিন্তু মন থেকে ঠিকই জানে, হয়তো এটাই তাদের শেষ যুগল যাত্রা । কিছু ছোট ছোট ভুল, অবিশ্বাস, সন্দেহ গুঁড়িয়ে দিয়েছে এতোদিন ধরে তিলে তিলে গড়ে তোলা স্বপ্নময় এক যাত্রাপথ !

মেয়েটা রিকশায়, ছেলেটির হাত ধরে বসে আছে । খুব ইচ্ছে করছে কাঁধে মাথা রাখতে, কিন্তু সদ্য সম্পর্ক হওয়া মেয়েটির সাহসে কুলোচ্ছে না । ছেলেটিও মূর্তির মতো বসে আছে । তার মনেও হয়তো খেলে যাচ্ছে একই রকম কোন ভাবনা ।

জ্যাম পড়েছে । গাড়ির পাশেই দাঁড়িয়ে আছে রিকশাটি । গাড়ির ভেতর চোখ পড়তেই মেয়েটি একটা দীর্ঘশ্বাস ছাড়ে এই ভেবে যে, “আহা, মেয়েটা কতো সুখী ! কবে আমি তার কোলে এভাবে মাথা রাখতে পারবো?” চোখ ভিজে আসে তার ।

গাড়ির মেয়েটি কাঁদছে, কাঁদছে রিকশার মেয়েটাও । একজনের কান্না স্বপ্নভঙ্গের বেদনার, আরেকজনের কান্না অনাগত সুখস্বপ্নে বিভোরতার

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *